• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

সোমবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৯ মহররম ১৪৪২, ১০ আশ্বিন ১৪২৭

ঘুরে দাঁড়িয়েছে রপ্তানি বাণিজ্য

    সংবাদ :
  • অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক
  • | ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ০৬ আগস্ট ২০২০

image

করোনাভাইরাসের কারণে রপ্তানি আয় তলানিতে নেমেছিল বাংলাদেশের। তবে জুলাই মাসে এসে রপ্তানি বাণিজ্যে ঘুরে দাঁড়িয়েছে। জুলাইয়ে পণ্য রপ্তানি থেকে ৩৯১ কোটি ৯ লাখ ২০ হাজার ডলার আয় হয়েছে যা লক্ষ্যমাত্রা থেকে ১৩.৩৯ শতাংশ বেশি। রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে এই তথ্য জানা গেছে।

প্রতিবেদনে দেখা যায়, চলতি অর্থবছরের প্রথম মাস জুলাইয়ের রপ্তানির লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৩৪৪ কোটি ৯০ লাখ ডলার। চলতি অর্থবছরের প্রথম মাস জুলাইয়ে পণ্য রপ্তানি থেকে ৩৯১ কোটি ৯ লাখ ২০ হাজার ডলার আয় করেছে বাংলাদেশ। লক্ষ্যমাত্রা থেকে ১৩.৩৯ শতাংশ রপ্তানি বৃদ্ধি পেয়েছে। ২০২০-২১ অর্থবছরের প্রথম মাস জুলাইয়ে তৈরি পোশাক খাতে রপ্তানি আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ২৮৪ কোটি ২০ লাখ ৬০ হাজার ডলার। আর হয়েছে ৩২৪ কোটি ৪৯ লাখ ৪০ হাজার ডলার। সে হিসেবে রপ্তানি আয় বেড়েছে ১৪.১৮ শতাংশ। হোম ট্যাক্সটাইল খাতে রপ্তানি লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৮ কোটি ৭ লাখ ৬০ হাজার ডলার। আয় হয়েছে ৯ কোটি ৪০ লাখ ১০ হাজার ডলার। লক্ষ্যমাত্রা থেকে রপ্তানি বেশ হয়েছে ১৬.৪১ শতাংশ। ম্যানুফ্যাকচারিং খাতে রপ্তানি আয় হয়েছে ৩৭৬ কোটি ৭৩ লাখ ৪০ হাজার ডলার। লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৩৩১ কোটি ৭ লাখ ডলার। যা লক্ষ্যমাত্রা থেকে ১৩.৭৯ শতাংশর বেশি আয় হয়েছে। কেমিক্যাল পণ্য রপ্তানি করে আয় হয়েছে ২ কোটি ২৯ লাখ ৮০ হাজার ডলার। লক্ষ্যমাত্রা ছিল ২ কোটি ৬ লাখ ১০ হাজার ডলার। রপ্তানি আয় বেড়েছে ১১.৫ শতাংশ। চামড়া ও চামড়াজাত পণ্য রপ্তানি করে আয় হয়েছে ৮ কোটি ৯৯ লাখ ৪০ হাজার ডলার। লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৭ কোটি ৭৩ লাখ ৯০ হাজার ডলার। সে হিসেবে রপ্তানি আয় বেড়েছে ১৬.২২ শতাংশ। পাট ও পাটজাত পণ্য রপ্তানিতে আয় হয়েছে ১০ কোটি ৩৫ লাখ ১০ হাজার ডলার। লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৯ কোটি ৮১ লাখ ৭০ হাজার। রপ্তানি বেশি হয়েছে ৫.৪৪ শতাংশ। এছাড়াও কৃষি পণ্য রপ্তানি করে আয় হয়েছে ১০ কোটি ১০ লাখ ৬০ হাজার ডলার। লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৯ কোটি ১০ হাজার ডলার। সে হিসেবে লক্ষ্যমাত্রা থেকে রপ্তানি বেড়েছে ১২.২৮ শতাংশ। হিমায়িত মাছ রপ্তানি করে আয় হয়েছে ৪ কোটি ২৫ লাখ ২০ হাজার ডলার। লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৪ কোটি ৮২ লাখ ৯০ হাজার ডলার। সে হিসেবে লক্ষ্যমাত্রা থেকে ১১.৯৫ শতাংশ কম।

ইপিবি সূত্রে আরও জানা গেছে, কোভিড-১৯ মহামারীর ধাক্কা বাংলাদেশে লাগতে শুরু করে গত মার্চ মাস থেকে, এপ্রিলে রপ্তানি কমে মাত্র ৫২ কোটি ডলারে নেমে এসেছিল, যা ছিল রেমিটেন্সের চেয়েও কম। বিধিনিষেধ শিথিল করে কলকারখানা চালুর পর মে মাসে রপ্তানি বেড়ে ১৪৬ কোটি ৫৩ লাখ ডলারে দাঁড়ায়। অর্থবছরের শেষ মাস জুন মাসে পণ্য রপ্তানি থেকে আয় হয়েছিল ২৭৮ কোটি ৪৪ লাখ ডলার। সব মিলিয়ে গোটা ২০১৯-২০ অর্থবছরে বিভিন্ন পণ্য রপ্তানি করে বাংলাদেশ ৩ হাজার ৩৬৭ কোটি ৪০ লাখ (৩৩.৬৭ বিলিয়ন) ডলার আয় করেছে। এই অঙ্ক আগের অর্থবছরের চেয়ে ১৭ শতাংশ কম। আর লক্ষ্যের চেয়ে কম ২৬ শতাংশ। গত অর্থবছরে রপ্তানি আয়ের প্রধান খাত তৈরি পোশাক রপ্তানি থেকে আয় হয়েছে ২৭ দশমিক ৯৫ বিলিয়ন ডলার। লক্ষ্য ছিল ৩৮ দশমিক ২০ বিলিয়ন ডলার। ২০১৯-২০ অর্থবছরে নিট পোশাক রপ্তানি থেকে আয় হয়েছে ১৩ দশমিক ৯১ বিলিয়ন ডলার। আগের বছরের চেয়ে আয় কমেছে ১৭ দশমিক ৬৫ শতাংশ। ওভেন পোশাক থেকে আয় হয়েছে ১৪ দশমিক ০৪ বিলিয়ন ডলার। প্রবৃদ্ধি কমেছে ১৮ দশমিক ৫৮ শতাংশ।

উল্লেখ্য, নতুন অর্থবছরে পণ্য রপ্তানি করে ৪১ ও সেবা খাতে ৭ বিলিয়ন ডলার আয়ের প্রত্যাশা করছে সরকার। বিশ্ববাণিজ্যে করোনার নেতিবাচক প্রভাবের ফলে বিগত মার্চ, এপ্রিল ও মে মাসে পণ্য খাতের রপ্তানি আয় হ্রাস পেয়েছে। তবে জুনে তা বৃদ্ধি পেতে শুরু করেছে। বিশ্ব অর্থনীতি ২০২১ সালের মধ্যেই প্রবৃদ্ধির ধারায় ফিরে আসবে।